তথ্য প্রযুক্তি

চাকরি না খুঁজে উল্টো দিতেও পারেন। জানতে চান সেই রহস্য ……. !!

চাকরি না খুঁজে উল্টো দিতেও পারেন। জানতে চান সেই রহস্য ……. !!

ইদানীং আমাদের দেশে একটা প্রচারণা নিয়ে বেশ আলোচনা শোনা যায়। সেটা হল “ চাকরি খুঁজবো না, চাকরি দিবো ” শীর্ষক এই প্রচারণায় অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই সফলতার মূখও দেখছেন। কিন্তু চাকরি না খুঁজে উল্টো চাকরি দেওয়া কি সহজ? প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে না, যতটা সহজ শোনায় ব্যাপারটা ততটা সহজ নয়। তবে, খুব কঠিনও নয়। ইন্টারনেটের প্রসারের সাথে সাথে অনেক কিছুই এখন সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে চলে এসেছে।  তথ্য ও প্রযুক্তি এখন আগের চেয়ে অনেক সহজ হয়ে গেছে। এই সহজ দুনিয়া থেকে আয় করার কিছু সহজ উপায়ও আছে।

ইউটিউব

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম অর্থ আয়ের এক বড় উপায়। বিশেষ করে ইউটিউব। রান্না শেখানো থেকে শুরু করে বিভিন্ন সমস্যার সহজ সমাধান কিংবা ছোট নাটক, মজার ভিডিও তৈরি ইত্যাদির মাধ্যমে ইউটিউব থেকে আয় খুব বেশি কঠিন নয়। এর কারণ বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউব, যারা কন্টেন্ট তৈরি করেন, তাদের সঙ্গে আয়ের একটা অংশ শেয়ার করে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের কয়েকজন তরুণ এই পথে গিয়ে ভালে করছেন। চাইলে আপনিও ইউটিউবার হবার চেষ্টা করতে পারেন। এজন্য দরকার ক্রিয়েটিভ কিছু আইডিয়া, ভিডিও করার উপকরণ এবং অবশ্যই ইন্টারনেট ও কম্পিউটার ব্যবহারে দক্ষতা।

সোশ্যাল মিডিয়া

ফেসবুক বা টুইটার অবশ্য যারা কন্টেন্ট তৈরি করেন তাদের এখনো সরাসরি কোনে অর্থ দেয় না। তবে এক্ষেত্রে অর্থ উপার্জনের উপায় একটু ভিন্ন হতে পারে। আপনি চাইলে কোনে ব্র্যান্ডের ফেসবুক বা টুইটার অ্যাকাউন্ট ‘ম্যানেজ’ করতে পারেন। মূল কাজ হবে সামাজিক যোগাযোগ ব্যবহার করে সেই পণ্যের প্রসার বাড়ানো। এজন্য পণ্য ব্যবহারকারীর সঙ্গে একটা ভাল সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে ফেসবুক বা টুইটারে। এই কাজে প্রযুক্তি জ্ঞানের পাশাপাশি ভাষার দক্ষতাও থাকতে হবে। বিশেষ করে ভালে ইংরেজি জানা থাকলে কাজের পরিধি অনেক বাড়বে।

ঘরে বসেই কাজ করুন

আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অর্থ আয়ের দিক থেকেও খুব বেশি পিছিয়ে নেই বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম।  এক্ষেত্রে সহায়তা করছে ফ্রিল্যান্সার বা মুক্তপেশাজীবীদের কাজ দেয় এমন কিছু ওয়েবসাইট। এইসব ওয়েবসাইটে গিয়ে নিবন্ধনের পর নিজের যোগ্যতা গুলো সেখানে দিতে হবে। এরপর আপনি যা জানেন, সেটা হতে পারে ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন, এসইও কিংবা লেখালেখি। এই সমস্ত কাজ গুলো পেলে করতে থাকুন। প্রথমদিকে একটু অল্প টাকায় করে দিতে পারেন। তবে কাজ ভাল করলে এইসব ওয়েবসাইটে রেটিংয়ে আপনার অবস্থা ভাল হবে। আর রেটিং যত ভাল, পরিবর্তীতে কাজ পাওয়া ততই সহজ। একসময় চাইলে নিজে ছোটখাট একটা কোম্পানি গড়ে অন্যদেরও কাজ, অর্থাৎ চাকরি দিতে পারবেন।

গুগল থেকে অর্থ আয়

বিষয়ভিত্তিক ওয়েবসাইট থেকে অর্থ আয়ের ক্ষেত্রে এক বড় উৎস হচ্ছে গুগল অ্যাডসেন্স। আপনার ওয়েবসাইটটি যদি জনপ্রিয়তা অর্জনে সক্ষম হয় এবং গুগলের নিয়মকানুন মেনে পরিচালনা করা হয়, তাহলে গুগল অ্যাডসেন্সের বিজ্ঞাপন পেতে পারেন। তবে সমস্যা হচ্ছে, এখন পর্যন্ত বাংলা ভাষা গুগলের এই সেবায় অন্তর্ভূক্ত হয়নি, যদিও কয়েকটি বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হচ্ছে। তবে এই সমস্ত সাইটে গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার পর  বাংলা কন্টেন্ট ব্যবহার করা হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিষয়ভিত্তিক ব্লগাররা গুগল অ্যাডসেন্স থেকে ভালে অর্থ উপার্জন করেন, যা তাদের জন্য জীবিকা নির্বাহের প্রধান উৎস।

ইন্টারনেটে অর্থ আয় সহজ হলেও এখনো বেশ কিছু বাধা রয়ে গেছে। বিশেষ করে বাংলাদেশে পেপ্যাল সেবা এখনো চালু হয়নি। ইন্টারনেটে উপার্জিত অর্থ সহজে দেশের অ্যাকাউন্টে জমা করা যাচ্ছে না বলে মাঝে মাঝে মুক্ত পেশাজীবীরা অভিযোগ করেন। আর সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে, উচ্চগতির ইন্টারনেট এখনো সব জায়গায় সহজলভ্য হয়নি। এইসব অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং বিভিন্ন বিষয়ে মানসম্পন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা গেলে বাংলাদেশে বসে চাকরি ছাড়াও অর্থ আয় করে বেকারত্ব ঘুচাতে পারবেন আরো অনেকেই।

Information Technology Infrastructure Library Certification

Information Technology Infrastructure Library Certification

In 21st century every business organization wants to increase their profits by using IT and management services. For that reason, ITIL (Information Technology Infrastructure Library) certification is known as a collection of the best preparation stock for Information Technology (IT) service management. It is connected with computer and telecommunication procedure. Every company is now rely on IT for making plans, working, collecting data, producing and many other vital work. ITIL certification is a sector where hi-tech possessions of any companies are saved according to its main concern and necessities. Its main source is hardware, software, network, data and data related facilities. It is introduced the most broad noticeable set of IT services.(Information Technology)

 

*Description of ITIL Certification

It is formed by the British Government in 1980s to give people standard knowledge and proper utilization on IT. First ITIL book was published on 1989-1996s with 30 volumes. For its noticeable publicity and demand it was published on 2000, 2001, 2007 and 2011 respectively. This book contains 8 separate groups on it management. It is more affordable and inexpensive. On July 2013 AXELOS Ltd was owned ITIL upgrading it. Now it has 44volumes in its 8th edition. To achieve ITIL certification this book is mandatory.

 

* Cost and course description of ITIL Certification

Generally, it is familiar as a cost saving course but it has very little cost according to its necessity. This may 3days courses $800-1100 (USD) and 5days courses cost around $3000 (USD). It reduces the long term cost and courses. To cope with the cope with challenging world, it opens new dimension with real world example to increase IT (Information Technology) quality and supply services.

Usually, there are two types of training off-peak and on-peak training. These two has different impact and time limitation as well.

Off- Peak: This training has numerous formats. In this training candidates get 3days in week or in a weekend to focus on education for those who does not have enough time.

  1. On-Peak: In a On-peak training method candidates can get training on a working hour like 9-5pm from Friday to Saturday.
  2. On-line: People can learn more things about ITIL through internet and online courses.

 

*ITIL Viewers

Normally, business related people are the viewers of ITIL. Sometimes, we can see private and public viewers of it. On the other words, a person who wants to achieve his target, they take help from it. It not only helps in IT sector but also helps to make successful project. Besides, it ensures 50% chances of excellent project. Because, using this source in project management, analyst can include much information on IT at a easy way. Similarly, it’s quite easy to find out any data about project or industrial narrate topic. ITIL is not based on any specific organization, but any kinds of organization can find its effective IT sources through it. There are the opinions on of two viewers:

1 Private Students: Private viewers are those who want to qualify and get certification regarding some requirements. This types of viewers gain credits with the help of certification. Basically students are part of this section.

 

  1. Public Students: Public viewers are those who is doing business or other occupations and want to get idea in ITIL to compete with the competitive world. They want to progress their skills, efficiency and workability.

 

*Levels of ITIL Certification

ITIL Certification has some crucial levels according to its students and credit systems. All types of students should follow these levels to achieve their targets:

 

  1. Problem Solution Analyst: If a candidate falls into trouble, how they will overcome and prevent it. This course is designed by APMG international. It gives 1.5 credits.

 

  1. IT service management Foundation: It is based on IT ISO or IEC 20000 to give students idea about principles, practices and manners on IT. It has 1 credit.
  2. IT Lean: It teaches candidates how to reducing cost, add values, hardness, and changeability. It has 0.5 credits.

 

  1. CPDE: Its full form is Certified Process Designer Engineer. It includes IT services, management, designing, documentation, and project. It is worth 1.5 credits.

 

  1. ASL2: It is based on some practical tasks. It judge candidates practical sense. It gives 1 credit.

 

Besides these levels of credits candidates can receive additional credits like BiSL -0.5 credits, change analyst 1.5 credits, Database management 1.5 credits.

 

*ITIL Certification Aims

Its aim is to provide best technique on it sector reduce problem in management, chenge management theories, and ensure best working force all over the world.

These are the common aims of ITIL Certification:

  • Continuous improvement in services
  • Ensure Operation service
  • Increase Lifecycle
  • Designing Information
  • Transaction of Data
  • Provide key concepts
  • Plan effective strategy
  • Assure well-know job
  • Build up working power

Those are the most familiar aims of it. But, it aim is not limited just these factors, aims will be increased according to its users thinking.

Consequently, ITIL Certification is demand able and acceptable worldwide. It plays typical vital role to train individual with various modules and ways which the organization needs to secure their identity, and candidates need to boost up their lives.

Want to get a professional IT Training from AMWebCreation? We are ready to give you all the support what you want. See the details of our training here.

Application Development Company

Application Development Company

In this 21st century companies include a new service which is known as an Application Development Company. We provide all services which are related to the application development area. We make every service convenient according to our customers. We want to treat our clients with our best offers and quality facilities. On the Contrary we not only improve our current system better but also develop software. No matter where our clients are live, we can give service at any part of the country. It gives emphasis on client’s views. In addition, we offer proven and unique web applications. We create new dimension on application development internationally. We provide numerous applications which are describe below here in details-

 

Web Application Development

Everyone knows that new technologies bring many things and web application is one of them. Web Application development company helps to come closer to customers at any part of the world in a convenient way. We also prove technology solution and related services. Every single company wants to have web sites. A well organize and attractive web sites help to catch customers. We provide web application development for well-known companies. For spreading up to the mark apps for any companies we include below factors-

 

  • Design web sites
  • Maintain websites
  • Develop software for apps
  • Cope with market demands
  • Build internet market
  • Ensure quality performance
  • Reduce costs
  • Guarantee for best services
  • Provide standard apps
  • Assure feedbacks

 

 

Mobile Application Development

With the increasing demands on mobile applications, we offer application for any kind of mobile application development companies. With us you can feel free for anything as well as can go through a long path with us. We ensure quality work with our experienced team. In this section we include many other features as well like facebook advertise, Google advertise, search engine, PPC, email and so on. Additional apps are-

 

  • Application for ipad
  • Android application
  • Apps for J2me
  • Apps for Symbian
  • Sim toolkit
  • Java Card
  • Money transfer
  • Tracking & Dispatching GPS

 

Rational Application Developer

It is web sphere commercial software which works for visual designing, manufacturing, examine and deploying web services, java, portals etc. We include this service at our application development sector. Our aim is to ensure the best rational application developer for the welfare of mankind. We add professional wizards, writers, strategies, plans, tools, techniques. Furthermore, we solve complex of any software and identify patterns of any apps code. We assure much less cost than others. We not only provide apps developers but also train them through experts.

 

Rapid Application Development

It is basically a linear sequential software development service. It works for planning tasks. We are worked by our high skill engineers. We provide this application with a very short time. It is an object leaning approach in business area. Most of the functions are modernized by our experts. So it’s very easy to work on in any circumstances. If you get our service will have many more excellence like-

 

  • Best Quality
  • Provide feedbacks
  • Reduce risks
  • Automated tools
  • Complete all apps development in time
  • Make wise decision
  • Cope with market demands
  • Assure success Projects
  • Cheap rate service
  • Tested program
  • Proven apps
  • Follow agile methods

 

Joint Application Development

Joint Application Development is another service of our company which is the part of Application development. It is the method which is working on building a product with the development, management; create customer group and specific documents. In joint application development many developers and organizations come together to work a specific project in a combine atmosphere. We provide this application like top of the professional companies. By providing these services, we provide some extra merits for our client’s like-

 

  • Quality services
  • Working according to your needs
  • Timely implementations
  • Provide well communications
  • Solve problems unanimously
  • Link up with clients and provides
  • Overcoming the problems
  • Gather user requirements
  • No extra charges

 

IPhone Application Development

IPhone is known as a 3rd generation mobile phone to the young generation. In Today’s world all the popular companies invite customers to get development services and develop applications. We create quality applications for IPhone to spread several services. With the growing demands of IPhone apps we decide to serve this application globally. From other companies we include many more exclusive apps and features. These applications have some significant benefits such as-

  • Convenient Resource
  • Provide skilled worker
  • No additional charges on resources
  • High Income generation
  • Wonderful out sourcing process for development applications
  • Help to suit business requirements
  • Provide more than 2dozen live apps
  • Serve perfect tools
  • Ensure perfect videos and demos
  • Offer Top-Notch service
  • Much cheaper
ব্যবসায়ে ব্যবহার করুন পয়েন্ট অফ সেলস সফটওয়্যার

ব্যবসায়ে ব্যবহার করুন পয়েন্ট অফ সেলস সফটওয়্যার

আমরা অনেকেই পয়েন্ট অফ সেলস সফটওয়্যার এর সাথে পরিচিত। এটি সফল ব্যবসায়ীদের নিকট অনেক জনপ্রিয়। ৩০ বছর আগে যখন ব্যাংকিং-এ কম্পিউটারের কোন প্রয়োগ ছিল না, তখন গ্রাহকদেরকে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাড়িয়ে ক্যাশ কাউন্টার থেকে টাকা উঠানো বা জমা দিতে হত। ব্যাংকের কর্মকর্তাগণ রেজিস্ট্রার বইয়ে এন্ট্রি দিয়ে চেক পাশ করতেন। তাতে সময় লাগতো অনেক বেশী। কম্পিউটারের প্রচলণের পর গ্রাহকের হিসাবে দ্রুত পোষ্টিং দেওয়া সম্ভব হওয়ায় গ্রাহকদেরকে বেশীক্ষণ লাইনে দাঁড়াতে হয় না। মাস বা বছর শেষে আয় ব্যয় হিসাব তৈরি গ্রাহকের জমা উত্তোলন বা মুনাফা নির্ণয় কিংবা ব্যালেন্স সীট তৈরী করা অনেক সময় সাপেক্ষ ব্যাপার ছিল। যথাসময়ে আর্থিক প্রতিবেদন তৈরী প্রায় অসম্ভব ছিল। সকল শাখার প্রতিবেদন হেড অফিসে একসাথে করে একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন তৈরী ছিল বেশ কঠিন কাজ। তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে হিসাব নিকাশের কাজ এখন খুবই সহজ হয়ে পড়েছে কারন হাতের নাগালেই রয়েছে পয়েন্ট অফ সেলস (Point Of sale) সফটওয়্যারটি।

স্বদেশ আইটি বাংলাদেশ এর পয়েন্ট অফ সেল (Point Of sale) সফটওয়্যারটি এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ব্যবহার কৃত সেরা POS সফটওয়্যার । এই পয়েন্ট অফ সেল (Point Of sale) সফটওয়্যারটিতে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিকে পয়েন্ট অফ সেল মডিউল সংযুক্ত করা হয়েছে। উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, খুচরা বিক্রেতা, ছোট, বড় ও মাঝারি যে কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য সফটওয়্যারটি উপযোগী । বিশেষভাবে তৈরীকৃত এই সফট্ওয়্যার এর মাধ্যমে আপনি খুব সহজে আপনার কম্পিউটার দোকান, সুপার সপ, গ্রসারি সপ, ফার্নিচার, পেইস্ট্রি সপ থেকে শুরু করে যেকোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের হিসাব রাখতে পারেন। আমাদের এই সফট্ওয়্যার এর বিস্তারিত বিবরণ নিছে তুলে ধরা হলঃ

  • Easy User Interface
  • Fully Secured
  • Stylish Outlook
  • Totally User Friendly
  • Multi User System
  • Online/Ofline
  • Fully Desktop Based
  • Work Without Internet
  • Full Inventory System
  • Customer Management System
  • Date To Date Report Printing System
  • Buyer & Supplier Account Management
  • Build In Email & Sms Service

আরও বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

যোগাযোগের ঠিকানাঃ

বাড়ি নং#১০৬৯, শেখ ম্যানশন

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন

গাজীপুর চৌরাস্তা (সিয়াম সিএনজি পাম্পের বিপরীতে)

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন

গাজীপুর।

মোবাইলঃ ০১৮৮১০৪৯৩৯১,০১৮৮১০৪৯৩৯৪,০১৮৮১০৪৯৩৯৬

 

আমাদের সাথে থাকুন

ফেসইবুক
টুইটার
গুগল প্লাস
গুগল ম্যাপ

Free WordPress Themes, Free Android Games