৫০% ডিসকাউন্টে ফ্রীল্যান্সিং কোর্সে এ ভর্তি চলিতেছে

৫০% ডিসকাউন্টে ফ্রীল্যান্সিং কোর্সে এ ভর্তি চলিতেছে

 ৫০% ডিসকাউন্টে ফ্রীল্যান্সিং কোর্সে এ ভর্তি চলিতেছে

ভর্তি চলিতেছে                                                             ভর্তি চলিতেছে

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে  এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন এর  ফ্রীল্যান্সিং কোর্সে ৫০% ডিসকাউন্টে ভর্তি চলিতেছে।discount offer, ফ্রীল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং কোর্সসমূহ, ফ্রীল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং, ফ্রীল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং কোর্স, amwebcreation, এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন, ফ্রীল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং গাজীপুর,

আমাদের কোর্সসমূহ

*ওয়েব ডিজাইন

*ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

*ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

*জুমলা ডেভেলপমেন্ট

*ই-কমার্স  ডেভেলপমেন্ট

*সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

*স্যোসাল মিডিয়া  অপটিমাইজেশন

* ই-মেইল মার্কেটিং

* গ্রাফিক্স ডিজাইন

কোর্সসমূহের বর্তমান মূল্য তালিকাঃ

কোর্সের নাম পূর্ব মূল্য বর্তমান মূল্য
ওয়েব ডিজাইন ১২,০০০ ৬,০০০
ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ১৬,০০০ ৮,০০০
ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্টজ ১৬,০০০ ৮,০০০
জুমলা ডেভেলপমেন্ট ১৫,৫০০ ৭,৭৫০
ই-কমার্স ডেভেলপমেন্ট ১৬,৫০০ ৮,২৫০
সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ১২,৫০০ ৬২৫০
স্যোসাল মিডিয়া  অপটিমাইজেশন ১৫,৫০০ ৭,৭৫০
ই-মেইল মার্কেটিং ১২,৫০০ ৬,২৫০
গ্রাফিক্স ডিজাইন ১৫,৫০০ ৭,৭৫০

 

এই সুযোগ সীমিত সময়ের জন্য

যোগাযোগের ঠিকানাঃ

বাড়ি নং#১০৬৯, শেখ ম্যানশন

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন

গাজীপুর চৌরাস্তা (সিয়াম সিএনজি পাম্পের বিপরীতে)

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন

গাজীপুর।

মোবাইলঃ ০১৮৮১০৪৯৩৯১,০১৮৮১০৪৯৩৯৪,০১৮৮১০৪৯৩৯৬

তাছাড়া আপনি অনলাইনে ভর্তির জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন।

freelancing training center in bangladesh, freelancing training center in dhaka, freelancing training in Dhaka, outsourcing trainings in gazipur, outsourcing training center in gazipur, outsourcing training center in Dhaka, outsourcing training center in Bangladesh, freelance training course, online earning training in Bangladesh, online outsourcing training in Bangladesh, outsourcing training in Bangladesh, outsourcing training Bangladesh, freelancing training in Bangladesh, bangladesh freelance training, freelance in Bangladesh, odesk training center in Bangladesh, freelance outsourcing in Bangladesh, seo training in Bangladesh, outsourcing training center in Bangladesh,

আমাদের সাথে থাকুন

ফেসইবুক
টুইটার
গুগল প্লাস
গুগল ম্যাপ

Save

এসইও  এবং ফ্রিল্যান্সিং প্যাকেজ কোর্স

এসইও এবং ফ্রিল্যান্সিং প্যাকেজ কোর্স

ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে ভাল ধারনা থাকা যেমন জরুরি তেমনি কাজের উপর ভাল দক্ষতা থাকাও জরুরি।এস ই ও এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্স, এস ই ও এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্স গাজীপুর, এস ই ও এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বাংলাদেশ

মার্কেটপ্লেস এবং কাজের দক্ষতা দুটো কে মাথায় রেখে

আমরা এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন এসইও  এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্স দুটিকে প্যাকেজ আকারে করার সুযোগ দিচ্ছি।

সাধারনত আমাদের  এস ই ও কোর্সটির ফি ১০,০০০ টাকা এবং ফ্রিল্যান্সিং কোর্সের ফি ৮,০০০  টাকা।

যেহেতু এটা একটা প্যাকেজ কোর্স তাই, এবারের এস ই ও  এবং ফ্রিল্যান্সিং প্যাকেজ কোর্সটি মাত্র ১২,০০০ টাকায় আপনাকে অফার করছে।

অনলাইনে ভর্তির জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন।

আরও কিছু জানার জন্য এই নাম্বারে ফোন করুন।

মোবাইল-০১৮৮১০৪৯৩৯৬, ০১৮৮১০৪৯৪০০

 

এসইও কোর্সটিতে যা থাকছেঃ

১। এসইও কি, এসইও কতপ্রকার ও কি কি।

২। কী ওয়ার্ড রিসার্চ, কিভাবে বের করবেন ফোকাস কী-ওয়ার্ড।

৩। অন পেজ অপটিমাইজেশন এর সকল খুঁটিনাটি বিষয়।

৪। মেটা ট্যাগ এক্সপেরিমেন্ট, টাইটেল।

৫। কন্টেন্ট রাইটিং মেথড, কী-ওয়ার্ড রিসার্চ, সাইট ম্যাপ।

৬। সার্চ ইঞ্জিন উপযোগী সাইট মেকিং।

৭।ওয়েবসাইটের লিংক স্ট্রাকচার।

৮।অফ পেজ এর বিভিন্ন কলাকৌশল।

৯। সকল প্রয়োজনীয় টুলস (গুগল এনালাইটিক্স, ওয়েবমাস্টার) এর ব্যবহার।

১০। ফোরাম, ফোরাম টিউনিং, ব্লগ টিউমেন্টিং।

১১। আর.এস.এস সাবমিশন, প্রেস রিলিজ সাবমিশন, ডিরেক্টরি সাবমিশন।

১২। লিংক হুইল, গেস্ট ব্লগিং, আর্টিকেল মার্কেটিং।

১৩। বেস্ট ব্যাকলিংক ফাইন্ডিং টেকনিক।

১৪। ওয়ার্ডপ্রেস ও ব্লগার ওয়েবসাইট এর সকল এসইও প্লাগিন এর ব্যবহার।

১৫। বিভিন্ন ওয়েব অ্যানালাইজার সেট-আপ এবং মেইনটেন করা।

১৬।এসইও টাইটেল ট্যাগ, এসইও মেটাট্যাগ, এসইও এ্যাংকরট্যাগ।

১৭। সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে ওয়েবসাইটের URL রেজিট্রেশন করা।

১৮। গুগল ওয়েবমাস্টার টুলস বানানো এবং এর ব্যবহার পদ্ধতি।

১৯। এসইও রিলেটেড অন্যান্য কিছু বিষয় ইত্যাদি।

 

অনলাইনে ভর্তির জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন।

আরও কিছু জানার জন্য এই নাম্বারে ফোন করুন।

মোবাইল-০১৮৮১০৪৯৩৯৬, ০১৮৮১০৪৯৪০০

 

 

ফ্রিল্যান্সিং কোর্সে যে সকল বিষয় আপনি জানতে পারবেন,

  • ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কি কি ধরনের কাজ কি পরিমানে আছে।
  • ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কি কি প্রয়োজন এবং কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন।
  • কাজ করার ক্ষেত্র এবং বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে বেসিক ধারনা।
  • আপনার জন্য উপযুক্ত কাজের ক্ষেত্র খুঁজে বের করা।
  • কাজের জন্য আবেদন এবং কাজ পাওয়ার পদ্ধতি।
  • প্রোফাইল শতভাগ যেভাবে সম্পন্ন করবেন।
  • গুগোল এডসেন্স কি এবং এর মাধ্যমে আয়ের উপায়।
  • ব্যাসিক এইচটিএমএল স্ট্রাকচার এবং বিভিন্ন এইচটিএমএল ট্যাগ।
  • প্রোফাইল এর পোর্টফোলিও পেজটি যেভাবে পরিপুর্ন করবেন।
  • কভার লেটার এবং ওয়ার্ক সাবমিশন করার পদ্ধতি।
  • ব্লগস্পট সাইট বা নিজের ওয়েব-সাইটের মাধ্যমে যেভাবে আয় করবেন।

 

আপনি যে সকল সুবিধাদি পাবেন……

  • উন্নতমানের ক্লাসরুমের সুবিধা।
  • ক্লাসরুমে উন্নতমানের প্রোজেক্টর।
  • শুরু থেকে প্রফেশনাল লেভেল পর্যন্ত যাবতীয় বিষয় দেখানো।
  • হাতে কলমের পাশাপাশি প্র্যাক্টিকাল করে দেখানঅন
  • প্রাকটিস করার জন্য প্রয়োজনীয় সোর্স ফাইল, সফটওয়্যার এবং তথ্য প্রদান করা হবে।

অনলাইনে ভর্তির জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন।

আরও কিছু জানার জন্য এই নাম্বারে ফোন করুন।

মোবাইল-০১৮৮১০৪৯৩৯৬, ০১৮৮১০৪৯৪০০

 

আমাদের সাথে যোগাযোগ

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন

বাড়ি নং ১০৬৯,শেখ ম্যনসন,সিয়াম সি এন জি পাম্প এর বিপরীত পাশে,শিব বাড়ি রোড,গাজিপুর চৌরাস্তা।

Mobile +88 01881049391
Mobile +88 01881049394
Mobile +88 01846288000
Skype: am.webcreation

আমদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

গ্রাফিক্স ডিজাইন  ট্রেনিং গাজীপুর,

গ্রাফিক্স ডিজাইন ট্রেনিং গাজীপুর,

গ্রাফিক্স ডিজাইন ট্রেনিং গাজীপুর

অনেকেই ভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন করা খুবই সহজ, সবাই এটা করতে পারেন। কিন্তু কথাটা ভুল। বেশ কিছু কঠিন বিষয় যা আপনাকে আগে মাথায় এবং হাতে আনতে হবে তারপর হয়তো কাজটি সহজ হবে। তাই শুরু থেকে প্রতিটি বিষয় মনোযোগ দিয়ে বুঝতে হবে এবং আয়ত্ত করতে হবে।

গ্রাফিক্স শব্দটির অর্থ হচ্ছে ড্রইং বা রেখা অঙ্কন। এই গ্রাফিক্স শব্দটি সেই সব চিত্রকে বুঝায় যে চিত্র সমূহের মাধ্যমে সফল পরিসমাপ্তি ড্রইং এর উপর নির্ভরশীল যা রং এর উপর নয়। গ্রাফিক্স অর্থ রেখা আর ডিজাইন অর্থ পরিকল্পনা বা নকশা। গ্রাফিক্স ডিজাইন বলতে আমরা মূলত সেই সব চিত্র কর্মকে বুঝি যা পরবর্তীতে ছাপার জন্য তৈরী করা হয়।কিন্তু বর্তমানে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ছাপার মধ্য সীমাবদ্ধ নেয় বরং মিডিয়া, ওয়েব ছাড়াও বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যাবহারিত হয়।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজের ক্ষেত্রঃ
ফ্যাশন ডিজাইন, টেক্সটাইল ডিজাইন, ইন্টেরিওর ডিজাইন, লোগো, কার্টুন মেকিং, ইন্টারেক্টিভ মিডিয়া,বিভিন্ন প্রিন্ট মিডিয়া, ওয়েব মিডিয়া, ফটোগ্রাফি, গেম ডিজাইন,ফাইন আর্ট, ইনফরমেশন মিডিয়া,এবং মোবাইল এপ ডিজাইন ইত্যাদি ছাড়াও অসংখ্য সেক্টরে এখন গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজের ছড়াছড়ি।

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর পরিধি তিন ভাবে বিভক্ত

  • প্রিন্টমিডিয়া
  • মাল্টিমিডিয়া
  • এবং ওয়েব মিডিয়া

একজন এডভান্স লেভেলের গ্রাফিক্স ডিজাইনার এর যা যা জানা প্রয়োজন

ইলাস্ট্রেশন
টিপোগ্রাফি
এনিমেশন
ফটো রিটাচিং ও এডিটিং
ডিজিটাল/ওয়েব পেজ ডিজাইন
প্রিন্টমিডিয়া
টেক্সটাইল ডিজাইন
ইনফরমেশন ডিজাইন
ফাইন আর্ট/ভিজুয়াল আর্ট
এডভারটাইজিং
আর্ট ডাইরেকশন ইত্যাদি।

গ্রাফিক্স ডিজাইনের সফটওয়্যার গুলো

প্রফেশনাল’রা যারা টিভি বা অন্যান্য মিডিয়াতে অনেক হাই এন্ড গ্রাফিক্স এর কাজ, এনিমেশন, মাল্টিমিডিয়ার কাজ করে তারা সাধারণত ম্যাক সফটওয়্যারটি ইউজ করে। কিন্তু একটি ম্যাক এর দাম বেশিরভাগ মানুষের সাধ্যের বাইরে হওয়াতে ঘরে অথবা অফিসে উইন্ডোজ’ই ব্যবহার করে।

ডিজাইন এবং ফটোগ্রাফির জন্য

  • Photoshop
  • Illustrator
  • InDesign
  • Adobe Muse
  • Lightroom
  • Elements family ইত্যাদি

ভিডিও এডিটিং এর জন্য

  • Adobe Premiere
  • After Effects

 জব এর জন্য একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার এর যে দক্ষতাগুলো থাকা প্রয়োজন

  • ক্লায়েন্টের বিজনেস এর ধরন সম্পর্কে জানতে হবে, প্রডাক্ট সম্পর্কে ধারনা লাভ বা প্রডাক্টের প্রতিযোগী কারা এবং বাজার  ও ক্রেতার মধ্যকার অবস্থা সম্পর্কে জানতে হবে।
  • নতুনত্ব ও অভিনব প্রডাক্ট এর ডিজাইন তৈরি এবং বর্তমান মার্কেট সম্পর্কে বিভিন্ন রিসার্চ করার ক্ষমতা থাকতে হবে।
  • প্রডাক্টের কোন ত্রুটি থাকলেতা নিজস্ব ক্রিয়েটিভিটির মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের মেধা থাকতে হবে।
  • প্রডাকশন টেকনিক জানার পাশাপাশি প্রিন্ট মিডিয়া এবং ডিজিটাল মিডিয়া সম্পর্কে গভীর জ্ঞান থাকতে হবে।
  • যখন যে মিডিয়া কাজ করবে সেই মিডিয়ার কাজের সাথে জড়িত অন্যান্যদের সাথে যোগাযোগ থাকতে হবে। যেমন ওয়েব এ থাকলে প্রোগ্রামারদের সাথে, কপিরাইটারদের সাথে, বা ডিজাইনারদের সাথে, এবং  প্রিন্টে মিডিয়াতে থাকলে ফটোগ্রাফারদের সাথে, প্রেসেরসাথে ইত্যাদি।
  • কাজের সময় বাজেট এবং সময়ের ধরা বাধা নিয়মকে মাথায় রাখতে হবে।

 

  • লক্ষণীয়:
    *গ্রাফিক্স ডিজাইন একটি সৃষ্টিশীল শিল্প যার পূর্ব শর্ত দৃষ্টি নন্দন হওয়া।
    *মাথায় রাখতে হবে Final Output কি হবে? Print না Video নাকি ওয়েব রিলেটেড? শুরুতেই নির্ধারণ করে নিতে হবে কি কাজ করবো ? এবং কাদের জন্য করবো? কিভাবে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করবো ?

আরও জানতে চান? অথবা ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে চান?

তাহলে আমাদের সাথে সংযুক্ত হউন।

ঠিকানাঃ বাড়ি নং ১০৬৯,শেখ ম্যনসন,সিয়াম সি এন জি পাম্প এর বিপরীত পাশে,শিব বাড়ি রোড,গাজিপুর চৌরাস্তা।

ফোনঃ ০১৮৪৬২৮৮০০০,০২৯২৬৩১৩৬

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

গ্রাফিক্স ডিজাইন

Free Seminar for online earning

Free Seminar for online earning

Online Earning is the best way for unemployment specially Bangladesh. So we are host a free seminar about how to earn online.

Subject to be discuses in the Seminar is below,Online earning

How To Start An Online Business

How to online earning

Online Market Place

Blogging Tools

How to make a Blog?

How to earn by a Blog?

How to make a online business

What will be cost for a Online Business

and overall online business or online earning idea.

আপনি কি আউটসোর্সিং নিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহী?

অনলাইন জগতে ক্যারিয়ার ডেভেলপ করার এক ভিন্নধর্মী আইটি প্রতিষ্ঠান এএম ওয়েব ক্রীয়েশনের ফ্রী সেমিনারে অংশ গ্রহণ করুন। ফ্রীল্যান্সিং এর মাধ্যমে ঘরে বসে আয় করার পদ্ধতি সম্পর্কে জানুন এবং অনলাইন জগতে আপনার ক্যারিয়ার ডেভেলপ করুন! বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুনঃ 0184628800

আরও বিস্তারিত জানার জন্য আমদের সাথে নিম্ম ঠিকানায় যোগাযোগ করুন।

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন

বাড়ি নং- ১০৬৯,জয়দেবপুর রোড, বোনরুপা রোড, ১৭০২

+৮৮ ০২৪-৯২৬৩১৩৬, +৮৮ ০১৮৪৬ ২৮৮০০০

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

online earning

ওয়েব ডিজাইন ট্রেনিং গাজীপুর।

ওয়েব ডিজাইন ট্রেনিং গাজীপুর।

ওয়েব ডিজাইন হচ্ছে এমন একটা পদ্ধতি যেখানে একটা ওয়েবসাইটের জন্য বাহ্যিক গঠন তৈরী করা। ওয়েব ডিজাইনারের প্রধান কাজ হল একটা ওয়েব সাইটের জন্য টেমপ্লেট বানানো।এটাই হল ওয়েব ডিজাইন। এসব তৈরী করতে প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ ব্যাবহার করা হয়। কোন প্রকার এপ্লিকেশন ছাড়া একটা স্বয়ংসম্পুর্ন ওয়েব সাইট তৈরী করা যায়। আর এই ডিজাইন  যদি সুন্দর না হয় তাহলে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে ভিসিটর কম পাবেন।

ওয়েব-ডিজাইন

ওয়েব ডিজাইন ট্রেনিং গাজীপুর

 

ওয়েব ডিজাইন শিখতে যেসব জানতে হবে

এইচটিএমএল : এটা একটি মার্কআপ ল্যাংগুয়েজ,

সিএসএস : এটাও একটি মার্ক আপ ল্যাংগুয়েজ

জাভাস্ক্রিপ্ট

জোকুয়েরি

ফটোশপ : এখানে যে কাজটি শিখতে হবে সেটি হলো পিএসডি থেকে এইচটিএমএল টেমপ্লেট (PSD to HTML) বানানো, এছাড়া ব্যানার ডিজাইন, বাটন, এনিমেশন তৈরী করা ইত্যাদি জানতে হবে।

কেন শিখবেন ওয়েব ডিজাইন

বর্তমানযুগে ওয়েব ডিজাইনের গুরুত্ব আসলে বলে শেষ করা যাবে না। বর্তমান সময়ে নবীন প্রযন্মো থেকে শুরু করে সবাই কমবেশী ইন্টানেট নির্ভর হয়ে পড়েছি। আজকাল পিৎজা অর্ডার করা থেকে শুরু করে বাচ্চার ডায়াপার সবই কেনা বেচা করা যায় ইন্টারনেটের মাধ্যমে। এর অর্থ হচ্ছে ঐ সংশ্লিষ্ট কম্পানির ওয়েব সাইটের মাধ্যমে যোগযোগ করা যায়। কারণ ইন্টারনেট শব্দটার সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত আছে বর্তমানে ওয়েবসাইট শব্দটি। আমরা যখন ইন্টারনেট এ কোন তথ্য অনুসন্ধান করি তখন সেটা কোন না কোন ওয়েবসাইট থেকেই আসে। এখানে ইন্টারনেট হলো একটি মাধ্যম। এটা একটি নেটওয়ার্ক পদ্ধতি যার মাধ্যমে দূরের কোন কম্পিউটারে থাকা ওয়েব পেইজ গুলোকে আমার কম্পিউটারে নিয়ে আসে এবং আমরা সেটা ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে আমাদের কম্পিউটারের পর্দায় দেখতে পাই।

বর্তমান বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির আবেদন, ফলাফল প্রকাশ করা থেকে শুরু করে বিমানের টিকেট ক্রয় করা, সোস্যাল কমিউনিকেশন,শপিং, ব্যাংকিং সব ক্ষেত্রে আজ সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইট ব্যবহার করা হচ্ছে। বর্তমানে সরকারী বা বেসরকারী সব প্রতিষ্ঠানই তাদের নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরী করছে। এজন্য ওয়েব ডিজাইন এর চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

তাহলে এখন আপনি নিজেই চিন্তা করে দেখুন, ওয়েবসাইটের গুরুত্ব এতটা হলে ওয়েব ডিজাইন অর্থাৎ একজন ওয়েব ডিজাইনারের গুরুত্বই বা কতোটা হতে পারে।

ওয়েব ডিজাইনারের কাজের ক্ষেত্র :

অনলাইনে একজন প্রফেশনাল ওয়েব ডিজাইনারের কাজের ক্ষেত্র এতটাই বেপক যে, ফ্রীলান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারে, এমনকি অনলাইন শপিং মার্কেটে নিজের তৈরিকৃত ডিজাইন জমা দিয়ে উপার্জন করতে পারে এবং কর্পোরেট ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান সমূহে ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে চাকুরির অনেক সুযোগ রয়েছে, এ ধরনের বহুমূখী উপার্জনের রাস্তা খোলা রয়েছে একজন প্রফেশনাল ওয়েব ডিজাইনরের জন্য। এবং দেশীয় বাজারে ওয়েব ডিজাইনরের চাহিদা ২০১৩ সাল থেকে বেড়েই চলেছে।

ধৈর্য ও পরিশ্রমের সাথে কাজ করতে পারলে অর্থাৎ নিজেকে একজন যোগ্য ওয়েব ডিজাইনার হিসাবে গড়ে তুলতে পারলে আপনাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হবে না। মূল কথা হচ্ছে, আপনার সাইট তৈরির দক্ষতা হতে হবে আন্তর্জাতিক মানের। দক্ষতা অর্জনে সকল ধরনের সহযোগিতায় আমরা সর্বদা আপনার পাশে থাকব। অনলাইন আয় বা কর্পারেট লেভেলে হোক না কেনো আপনার হবে সুনিশ্চিত, ক্যারিয়ার হবে উজ্জ্বল।

 

আমাদের প্রশিক্ষণে যা যা শেখানো হবে

এসইচটিএমএল , সিএসএস, এসইচটিএমএল ৫, সিএসএস ৩, ফটোশপ, পি এইচ পি, জাভাস্ক্রিপ্ট, পিএসডি টু এসইচটিএমএল, পিএসডি টু রেসপনসিভ বুটস্ত্রাপ ফ্রেমওয়ার্ক, ওয়রদপ্রেসস,জুমলা, ওডেস্ক , ইল্যান্স, ব্রিলান্সার, ফিবার , পিপল পার আওয়ার, বিডিং,টেকনিক। এছাড়াও প্রত্যেকটি বিষয়ে প্রফেশনালদের দ্বারা হাতে কলমে শেখানো হয়।

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন আপনাকে দিবে সঠিক দিকনির্দেশনা।

কোর্স নামঃ ওয়েব ডিজাইন

ব্যাচ নং ০৫

কোর্স ফিঃ ১০৫০০/-

ডিস্কাউন্ট ফিঃ/-৫২৫০/-     ০৬/১১/২০১৫ পর্যন্ত

ক্লাশ শুরুঃ ১০ নভেম্বর ২০১৫

চাকুরিজীবিদের জন্য সন্ধাকালিন ক্লাশের ব্যাবস্থা আছে।

আরো অনেক কিছু শিখেও অনলাইনে ভাল ক্যারিয়ার গড়ে তোলা সম্ভব, আরও জানতে এখানে ক্লিক করুন, এবং আমাদের সাথে সংযুক্ত করুন।

 

বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুনঃ

ঠিকানাঃ বাড়ি নং ১০৬৯,শেখ ম্যনসন,সিয়াম সি এন জি পাম্প এর বিপরীত পাশে,শিব বাড়ি রোড,গাজিপুর চৌরাস্তা।

ফোনঃ ০১৮৪৬২৮৮০০০,০২৪৯২৬৩১৩৬

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

ওয়েব-ডিজাইন

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে

বর্তমান সময়ে বেকার শব্দটি ওনেক বেশি বেমানান। কারণ অনলাইন এখন সারা বিশ্বকে নিয়ে এসেছে আপনার হাতের মুঠোয়। যোগাযোগ ব্যবস্থার একটি বিশাল আবিস্কার হলো ইন্টারনেট। সমগ্র বিশ্বে ছোট বড় কোম্পানীগুলো ভাবা শুরু করেছে,যে তাদের কাজের জন্য সকল স্টাফকে অফিসে এনে বসানোর কোন দরকার নেই। খরচ কমানোর জন্য তারা সারাবিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে কাজের জন্য লোক নেওয়া শুরু করল, যারা অফিসে না এসে বিভিন্ন দেশ থেকে ঘরে বসেই সব কাজ করবে। ঘরে বসেই মানুষ এখন এভাবে বড় বড় কোম্পানীতে চাকুরী করছে। দিনে দিনে এ সংখ্যা বেড়েই চলেছে। অনলাইনে বসে এরকম কাজ করে যারা নিজেদের ক্যারিয়ারকে গড়ে তুলেছেন, তাদেরকেই ফ্রিল্যান্সার বলা হয়। আর এ ধরনের কাজকেই বলা হয় ফ্রিল্যান্সিং।

ফ্রিল্ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলেযান্সিং শুরু করতে চাইলে কোন সেক্টরে কাজ করবেন আসুন জেনে নিই?
ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে এ বিষয়টি নিয়ে যারা নতুন ফ্রীলেন্সিং শিখতে আগ্রহী তাদের মনে প্রচুর প্রশ্ন থাকে। ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনলাইনে ইনকাম করতে আগ্রহী। কিন্তু কোন পথে হাটবেন, সেটি বুঝতে পারছে না। এর উত্তরটি নিজেকেই খুজে বের করতে হবে। যে, সে কোন কোন বিষয়ে আগ্রহী।এবং কোন কোন বিষয়ে কাজ জানলে বেশি সফলতা পাওয়া যাই সেগুলো জানতে হবে। তবে যাদের ফ্রিল্যান্সিং বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা কম, তাদের জন্য এখানে প্রধান প্রধান বিষয়গুলো নিয়ে সংক্ষিপ্তভাবে বলার চেষ্টা করছি।

অনলাইনে মূলত সবচাইতে বেশি কাজ পাওয়ার সুযোগ রয়েছে যে যে সেক্টরগুলোতে সেগুলো নিচে দেওয়া হলোঃ
ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে গ্রাফিক ডিজাইন, এসইও, ওয়েব ডিজাইন, ইমেইল মার্কেটিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ভিডিও অ্যাডিটিং, আর্টিকেল রাইটিং ,ডাটা এন্ট্রি প্রজেক্ট সাবমিটি, অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি।
গ্রাফিক ডিজাইন : গ্রাফিক ডিজাইন হলো যে কোন কোম্পানীর লোগো ডিজাইন, ব্রুশিয়ার ডিজাইন, ব্যানার ডিজাইন, ক্লিপিং প্যাথ থেকে শুরু করে অন্যান্য প্রিন্টিং জাতীয় সকল প্রোডাক্ট সমুহ গ্রাফিক ডিজাইনাররা তৈরি করে থাকেন। ভিডিও অ্যাডিটিং কিংবা অ্যানিমিশন প্রজেক্টের ক্ষেত্রেও গ্রাফিক ডিজাইনারদের প্রয়োজন। এমনকি এসইও প্রজেক্টের গ্রাফিক ডিজাইনারদের সাহায্য প্রয়োজন হয়।

ফ্রীলান্সিংয়ে গ্রাফিক ডিজাইনারদের চাহিদা অপরিসীম।
এসইও: SEO হল এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে একটি ওয়েব সাইটকে সার্চ ইঞ্জিন এর কাছে গুরুত্বপূর্ণ করে তুলে। একটি সাইটের SEO করার মুল উদ্দেশ্য হচ্ছে যখন কোন ইউজার কীওয়ার্ড লিখে সার্চ দেয় তখন তার সাইট টি যেনো সার্চ রেজাল্টে অন্য সকল সাইটকে পেছনে ফেলে সবার আগে নিয়ে আশা।
বর্তমান অনলাইন মার্কেটপ্লেস গুলোতে SEO এর প্রচুর কাজ রয়েছে। SEO এর কাজের ক্ষেত্রে বলা যেতে পারে যতদিন ওয়েব সাইট আছে ততদিন SEO এর চাহিদা থাকবে এবং এটা কমবে না বরং দিনদিন বেরেই চলবে। তাহলে বুঝতেই পারছেন SEO এর চাহিদা কতখানি !
অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং: কোন প্রতিষ্ঠানের অনুমতি নিয়ে তাদের প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সমূহের মার্কেটিং করে দিলে এবং সেক্ষেত্রে প্রতিটা প্রোডাক্ট কিংবা সার্ভিসের বিক্রির টাকা হতে একটা অংশ পেলে এ বিষয়টাকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলা হয়। আন্তর্জাতিক বহু বড় বড় প্রতিষ্ঠান তাদের ব্যবসাকে আরো বেশি বড় করার জন্য অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করিয়ে থাকে। বাংলাদেশের অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট এবং ক্লিক ব্যাংক অ্যাফিলিয়েট অনেক বেশি জনপ্রিয়।
ওয়েব ডিজাইনঃ বর্তমান যুগে প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। এছাড়া অনলাইনেই তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন নিউজ পোর্টাল, টিভি, কমিউনিটি সাইট, ব্লগসহ আরো বিভিন্ন ধরনের সাইট। এক জরিপ অনুযায়ি জানা গিয়েছে সারাবিশ্বে প্রতি মিনিটে ৫৬২টি করে নতুন ওয়েবসাইট চালু হচ্ছে। এ তথ্যটি ওয়েব ডিজাইন এর কাজের সম্ভাবনা বুঝতে অনেক সহজ করে দিবে আশা করছি।

ইমেইল মার্কেটিং: অনলাইনে মার্কেটিং এর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি মাধ্যম হচ্ছে ইমেইল মার্কেটিং। নিজের বা অন্যের কোন ব্যবসার প্রমোশনের জন্য এটি শিখতে পারেন। ফ্রীলান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে ইমেইল মার্কেটিং প্রচুর কাজ পাওয়া যায়।
অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট: যারা প্রোগ্রামিংয়ে মোটামুটি ভালো ধারণা আছে, তাদের জন্য আমার একটি পরামর্শ থাকে অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট শিখে নিন। স্মার্টফোনের ব্যবহার বেড়ে যাচ্ছে মানে অ্যাপস ডেভেলপারদের চাহিদাও অনেকাংশে বেড়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে এ সেক্টরটির অনেক চাহিদা থাকবে আশা করা যায়। মার্কেটপ্লেসগুলোতে এ ধরনের কাজের প্রতিযোগীতা কম থাকে এবং কাজের প্রতি ঘন্টা রেটও অনেক বেশি হয়ে থাকে।
ভিডিও অ্যাডিটিং : যারা ভিডিও তৈরি কিংবা অ্যাডিটিং এর কাজ জানেন, তারাও অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। কারণ এসইও, অ্যাডসেন্স ইনকাম কিংবা অ্যাফিলিয়েশনের আয়ের জন্য বর্তমানে ভিডিও অ্যাডিটিংয়ের কাজ জানা থাকলে অনেক ভাল হয়্। আর বর্তমানে একটা অংশ দেখা যায় গুগলে কোন কিছু সার্চ না দিয়ে ইউটিউবেই সার্চ বেশি দেয়। ইউটিউবে সার্চ বৃদ্ধি পাচ্ছে মানে ভিডিও অ্যাডিটিংয়ের জ্ঞান অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে।
আর্টিকেল রাইটিং : ইংরেজি জ্ঞান ভাল থাকলে এবং লেখালেখির ভালো অভ্যাস থাকলে শুধুমাত্র আর্টিকেল রাইটার হিসেবেই অনলাইনে ব্যস্ত ক্যারিয়ার গড়ে তোলা সম্ভব। মার্কেটপ্লেসগুলো আর্টিকেল রাইটিং এবং রিরাইটিং সম্পর্কিত কাজগুলো অনেক বেশি থাকে। তাছাড়া এ অভ্যাসকে কাজে লাগিয়ে ব্লগিং করার মাধ্যমেও প্রচুর আয় করা সম্ভব।
এম ওয়েব ক্রীয়েশন অত্যান্ত দক্ষতার সাথে ফ্রীলেন্সিং এর সকল ট্রীনিং করানো হয়।

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে আপনি এ ট্রেনিং গ্রহণ করতে পারেন।

আমাদের ট্রেনিং সমুহঃ
• ওয়েবসাইট ডিজাইন
• ওয়েব ডেভেলপমেন্ট
• গ্রাফিক্স ডিজাইন
• ক্লিপিং প্যাথ
• লগো ডিজাইন
• এস ই ও
• এস এম ও
• ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট
• জুমলা ডেভেলপমেন্ট
• ই-কমার্স ডেভেলপমেন্ট
• ই-মেইল মার্কেটিং
• ফ্রীলান্সিং

আরো অনেক কিছু শিখেও অনলাইনে ভাল ক্যারিয়ার গড়ে তোলা সম্ভব, আরও জানতে এখানে ক্লিক করুন, এবং আমাদের সাথে সংযুক্ত করুন

ঠিকানাঃ বাড়ি নং ১০৬৯,শেখ ম্যনসন,সিয়াম সি এন জি পাম্প এর বিপরীত পাশে,শিব বাড়ি রোড,গাজিপুর চৌরাস্তা।

ফোনঃ ০১৮৪৬২৮৮০০০,০২৯২৬৩১৩৬

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

button

ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং

ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং

ওয়েব প্রোগ্রামিং  বর্তমান বিশ্বে বেশ জনপ্রিয় একটা দক্ষতা ।
ইন্টারনেটে ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং য়ের মাধ্যমে উপার্জনের যত মাধ্যম রয়েছে, তার মধ্যে ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট হচ্ছে সবচেয়ে চাহিদাপূর্ণ ক্ষেত্র। মূলত বিশ্বের ছোট-বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এ ছাড়াও সবাই ব্যক্তিগত ও সামাজিক ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। সবাই চাচ্ছে, তার একটি ভার্চুয়াল ঠিকানা হোক। কারণ একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার প্রতিষ্ঠান একদিকে যেভাবে গ্রাহকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে,  বিভিন্ন দেশে  বা   বিভিন্ন শহরে  অবস্থিত নিজস্ব শাখার সাথে আত্ত্বযোগাযোগও খুব  সহজে এবং কম খরচে করতে পারে।ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং

বর্তমানে একটি ডেস্কটপ সফটওয়্যার তৈরি করার চাইতে ওয়েবসাইট তৈরির করতে সবাই বেশি আগ্রহী থাকে। এ কারণে, ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্টের কাজই সব চাইতে বেশি। এখন ফ্রীল্যান্সিংকে যদি আপনি আপনার পেশা হিসেবে নিতে চান তবে ওয়েব প্রোগ্রামিং, ওয়েব ডিজাইনিং,ওয়েব ডিজাইন।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট ,  এস ই ও ইত্যাদি দক্ষতাগুলো অর্জন করতে পারেন । কারণ এইসবের মাধ্যমে আপনি বেশ ভাল ইনকাম করতে পারবেন ।যারা ওয়েব প্রোগ্রামিং  এর বিভিন্ন বিষয়ে শিখতে চাচ্ছেন তাদের জন্য এ  এম ওয়েব ক্রিয়েশন দিচ্ছে এক দারুন অফার ।আগামী ৩০.১০.২০১৫ ইং তারিখে এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন এর উদ্ববোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন এর সকল ট্রেনিং এবং সার্ভিস সমূহে ৫০% ছাড় দেওয়া হচ্ছে।

আমাদের ট্রেনিং এবং সার্ভিস সমূহঃ

ট্রেনিং সমুহঃ

ওয়েব ডিজাইন

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

জুমলা ডেভেলপমেন্ট

ই-কমার্স ডেভেলপমেন্ট

এস ই ও

এস এম ও

গ্রাফিক্স ডিজাইন

ক্লিপিং পাথ

ইমেল মার্কেটিং

ফ্রীলেন্সিং

সার্ভিস সমূহঃ

ওয়েব ডিজাইন

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

ই-কমার্স ডেভেলপমেন্ট

জুমলা ডেভেলপমেন্ট

এস ই ও

গ্রাফিক্স ডিজাইন

ক্লিপিং পাথ

লোগো ডিজাইন

ইমেল মার্কেটিং

ডোমেইন,  হোস্টিং

উক্ত তারিখে আমাদের অনুষ্ঠানে আসার জন্য আপনাদের সকলের প্রতি আমন্ত্রন রইলো।

ঠিকানাঃ বাড়ি নং ১০৬৯,শেখ ম্যনসন,সিয়াম সি এন জি পাম্প এর বিপরীত পাশে,শিব বাড়ি রোড,গাজিপুর চৌরাস্তা।

ফোনঃ ০১৮৪৬২৮৮০০০,০২৪৯২৬৩১৩৬

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময়ঃ ৩০ শে অক্টোবর, রোজ শুক্রবার, বাদ আসর।

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

button

প্রফেশনাল ওর্য়াডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

প্রফেশনাল ওর্য়াডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

প্রফেশনাল ওর্য়াডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট, গাজীপুর।

প্রফেশনাল ওর্য়াডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট সেন্টার এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন এখন গাজীপুরে,width=

ওর্য়াডপ্রেস ডেভেলপমেন্টে    আমাদের সেবা সমূহ;

এইচটিএমএল,

এইচটিএমএল-৫

সিএসএস,

সিএসএস-৩

জাভাস্ক্রিপ্ট

জে-কোয়েরি

পিএসডি টু এইচটিএমএল

এইচটিএমএল টু পিএইচপি

পিএইচপি

পিএইচপি mysqal

কেন আপনি ওর্য়াডপ্রেস ব্যবহার করবেন?

বিশ্বের ২৪% থেকে ২৫% ওয়েবসাইট, ব্লগ, জটিল পোর্টাল, এন্টারপ্রাইজ ওয়েবসাইট, এবং এমনকি অন্যান্য অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রেও ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করা হয়। ২০০৩ সালে থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত ওয়ার্ডপ্রেস বিশ্বের বৃহত্তম ব্লগিং টুলস যা প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রয়োজনে ব্যবহার করা হয়।

বিশ্বের বিখ্যাত উল্লেখযোগ্য ব্রান্ডের ওয়েবসাইট এ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করছেন যেমন,

Fubiz মিডিয়া

ইএসপিএন স্পোর্টস প্রোগ্রামিং

TechCrunch

নিউ ইয়র্কার (The New Yorker)

বিবিসি আমেরিকা (BBC America)

অফিসিয়াল Star Wars ব্লগ

ভ্যারাইটি (Variety)

সনি মিউজিক (Sony Music)

এমটিভি খবর (MTV News)

Beyonce

EBay ইনকর্পোরেটেড

বেস্ট বাই (Best Buy)

বাটা (Bata)

নকিয়া কথোপকথন (Nokia Conversations)

ফরচুন (Fortune)

এখন কেন আপনি নয়?

আমরা ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে আপনার জন্য তৈরি করতে পারি অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ব্যাবসায়িক/কর্পোরেট সাইট, অনলাইন শপিং/ই-কমার্স, ব্লগ ইত্যাদি।

আরও বিস্তারিত জানার জন্য আমদের সাথে নিম্ম ঠিকানায় যোগাযোগ করুন।

এ এম ওয়েব ক্রিয়েশন

বাড়ি নং- ১০৬৯,জয়দেবপুর রোড, বোনরুপা রোড, ১৭০২

+৮৮ ০২-৯২৬৩১৩৬, +৮৮ ০১৮৪৬ ২৮৮০০০

গুগল ম্যাপ

গুগল প্লাস

ফেসবুক

টুইটার

eCommerce solution Company in Gazipur

eCommerce solution Company in Gazipur

AM Web Creation is the Best eCommerce solution company in Bangladesh Dhaka Gazipur. We are providing best service in this Sector

বাংলাদেশের লোকসংখ্যা ১৭ কোটি, এবং বি আর টি সি আনুসারে ইন্টারনেট ব্যবহারকারি ৩০%। একবার ভাবুনতো এ বিশাল ব্যবহারকারির ১০০০ ভাগ এর ১ ভাগও যদি আপনার ইউজার হয় তাহলে কেমন হবে আপনার ই-কমার্স ব্যবসা?eCommerce solution company

বাংলাদেশ প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে প্রতিনিয়ত বেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের দেশে বর্তমানে প্রায় ১৩ কোটির  উপরে মোবাইল সংযোগ রয়েছে। বিভিন্ন মাধ্যমে ইন্টারনেট সংযোগ রয়েছে ৫ কোটির উপরে এবং এই সংখ্যা দিন দিন বাড়তেই থাকবে। তাই যারা ই-কমার্স বিজনেস শুরু করেছেন বা করবেন তাদের সফলতার ক্ষেত্রে এটা অবশ্যই সম্ভাবনাময় খবর। অনলাইনের প্রচার ও প্রসার যত বাড়ছে, ততই বাড়ছে ব্যবসার সুযোগ।ই-কমার্স আজকের অনলাইনের বাজারের হট পরিচিত হয়ে ওঠার নাম। ই-কমার্স এর পূর্ণ রূপ ‘ইলেকট্রনিক কমার্স’। ই-কমার্স মানে হচ্ছে ইন্টারনেটে একটি প্ল্যাটফর্ম ব্যবহারের মাধ্যমে ক্রয়-বিক্রয়ের প্রক্রিয়া।

ভাবছেন কিভাবে বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করবেন?

আমরা আপনাকে দিবো সব রকম সমাদান, কারন amwebcreation is the best eCommerce solution company in Bangladesh as well as Gazipur.

আমরা যেভাবে আপনাকে সাহায্য করতে পারি

  • বাণিজ্যিক চিন্তাভাবনা বিশ্লেষণ
  • মূলধন সম্পর্কে ধারনা।
  • ই-কমার্স ব্যবসা পরিকল্পনা
  • ই-কমার্স ব্যবসা পরিচালনা পদ্ধতি
  • পণ্য ডেলিভারি পদ্ধতি
  • টাকা লেনদেন করার পদ্ধতি
  • পণ্য সরবরাহ
  • পণ্য বিতরণ
  • সেবা প্রদান
  • ওয়েবসাইট তৈরি
  • ডোমেইন এবং হোস্টিং রেজিস্ট্রেশন
  • কাজের বণ্টন
  • প্রচারনা
  • দক্ষ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার
  • লোকাল পেমেন্ট গেটওয়ে এবং মার্চেন্ট সার্ভিস
  • ব্যাংকিং, ইনস্যুরেন্স, ডিজিটাল মিডিয়া

যারা নতুন শুরু করেছেন অথবা শুরু করার কথা চিন্তা করছেন তাদের জন্য একটা কথা না বললেই নয় বাংলাদেশে ই-কমার্সের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল এবং আরও উজ্জ্বল হবে এবং আগামী পাঁচ বছর এ মদ্দে আপনিও ঘরে বসে অনলানে শপিং করবেন, এবং সেদিন বাংলাদেশের ইন্টারনেট ইউজার হবে ৮০%।

ই-কমার্স ব্যবসা শুরুর আগে নিচের কথা গুলো ভালো ভাবে খেয়াল করুন।

চিন্তাকে প্রাধান্য দিন, মন কে নয়

ধৈর্যশীল হন

সর্বোত্তম এ বিশ্বাস করুন

হিসাবী হয়ে উঠুন।

আপনার ই-কমার্স ব্যবসা ওয়েবসাইট  হয়ে যাক আমাদের সাথে।

আপনার ই-কমার্স ব্যবসা ওয়েবসাইট হয়ে যাক আমাদের সাথে।

ই-কমার্স ব্যবসায় বড় কোম্পানি হতে চাইলে শুরুতেই পুরো বিশ্বের ই-কমার্স ব্যবসার দিকে নজর দিতে হবে, কারন প্রায় প্রত্যেক দেশেই ই-কমার্স ব্যবসা এখনও পর্যন্ত কেবলমাত্র নির্দিষ্ট জাতীয় সীমানার মধ্যেই সীমিত। যুক্তরাষ্ট্রের ভোক্তারা সেখানকার স্থানীয় কোম্পানি অ্যামাজন, ইবে, গ্যাপ ও ওয়ালমার্টের মত কোম্পানির কাছ থেকে অনলাইনে পণ্য কিনে থাকেন। চীনে রয়েছে টিমেইল, টাওবাও ও জেডি ডটকম।ই-কমার্স ব্যবসা

উল্লিখিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো নিজ নিজ সীমানায় ভাল ব্যবসা করছে। ব্যতিক্রম শুধু অ্যামাজন, ইবে এর মত হাতেগোনা কয়েকটি কোম্পানি যেগুলো যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে অন্যান্য দেশে স্থানীয় শাখা চালু করে কার্যক্রম চালাচ্ছে।

কিন্তু এভাবে আলাদা শাখা না খুলে যদি একই ওয়েবসাইট থেকে আন্তর্জাতিক ভোক্তাদের অর্ডার নিয়ে পণ্য সরবরাহ করা যায় সেটাই হবে বৈপ্লবিক। আজকাল কম্পিউটারের চেয়ে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়ে যাচ্ছে। তাই মোবাইল ওয়েবের মাধ্যমেই এই কাজটি করা সহজ হবে।

শুধু তা-ই নয়, এখন বিভিন্ন দেশের ক্রেতারা তাদের সুবিধাজনক বাজার থেকে পণ্য কিনতে পছন্দ করেন। উদাহরণস্বরূপ, যুক্তরাষ্ট্রের লোকজন চীন থেকে সুলভে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক বা অ্যাপারেল প্রোডাক্ট কেনেন কেননা একই পণ্য মার্কিন বাজারে কিনতে গেলে অতিরিক্ত খরচ গুণতে হয়।

বর্তমানে এক দেশ থেকে অন্য দেশে মালামাল পরিবহণের জন্য বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যেমন ফেডেক্স, ইউপিএস, কন্টিনেন্টাল, ডিএইচএল প্রভৃতি। সুতরাং পরিবহণ নিয়েও আর ভাবনার কোনো আবকাশ রইলনা। কারন এসব কোম্পানি প্রতিযোগিতামূলক বাজারে চলনসই খরচ নিয়েই দেশ-দেশান্তরে পণ্য সরবরাহ করছে।

এই মুহুর্তে আন্তর্জাতিক পরিসরের ই-কমার্স ব্যবসা মূলত যুক্তরাষ্ট্র-চীন কেন্দ্রিক। তবে ধীরে ধীরে অন্যান্য দেশের ক্রেতারাও এই ই-কমার্স সুপার হাইওয়ে তে যুক্ত হতে যাচ্ছে এবং বাংলাদেশে ও অনেক গুলো ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান খুব সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করছে। আর এর দ্বারা ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয় পক্ষই লাভবান হচ্চেন।বাংলাদেশ এ ই-কমার্স ব্যবসার এখনি আদর্শ সময়। বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা প্রসার করার জন্য আরও ই-কমার্স সাইট চালু হওয়া প্রয়োজন এবং হলে বাংলাদেশের মার্কেট আরও বড় হবে এবং মানুষ ই-কমার্স ব্যবহার করতে উৎসাহিত হবে।

আমি নিম্মে কারন গুলো উল্লেখ করছি।

১>বাংলাদেশে বিশাল লোকসংখ্যাই হল বিশাল মার্কেট।

২>সুপার পাওয়ার ই-কমার্স ওয়েব ডেভেলপার

৩>টাকা লেনদেনের ব্যবস্থায় যুক্ত আছে অনলাইনে ক্রেডিট কাড,

৪>মোবাইল ব্যাংকি, এবং ক্যাশ অন ডেলিভারি

৫>হোম ডেলিভারির জন্য আছে অনেক কুরিয়ার।

তো হয়ে যাক আপনার ই-কমার্স ব্যবসা আমাদের সাথে, আমরা amwebcreation আপনাদের সাথে আছি বেস্ট ই-কমার্স ডেভেলপ করার জন্য। আমরাই প্রথম গাজীপুর বেস্ট ই-কমার্স ডেভেলপমেন্ট সেন্টার।

সে দিন বেশি দূরে নয় যেদিন ই-কমার্স ব্যবসা বাংলাদেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে।

 

 

Free WordPress Themes, Free Android Games